শেষ পর্যন্ত হুয়াওয়ের উপর থেকে নিজেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেন ট্রাম্প

দীর্ঘ এক মাসেরও অধিক সময় ধরে অনেক নাটকীয়তার পর শেষ পর্যন্ত হুয়াওয়েকে আমেরিকান কোম্পানিগুলোর সাথে ব্যবসা চালিয়ে নেয়ার অনুমতি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। একটি সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প নিজেই এ ঘোষণা দেন।

নিষেধাজ্ঞা দেয়ার এক মাসের মাথায় আবার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ব্যাপারটি চমকপ্রদ হলেও একেবারে অবিশ্বাস্য কোন ব্যাপার না। অনেকেই ধারনা করছিলেন যে আমেরিকা শেষ পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাধ্য হবে। আর শেষ পর্যন্ত হলো ও তাই।

জাপানের ওসাকা তে অনুষ্ঠিত জি২০ সম্মেলনে অংশ নিতে গিয়ে ট্রাম্প বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুলো চাইলে হুয়াওয়ের কাছে তাদের যন্ত্রপাতি বিক্রি করতে পারবে। তবে শুধুমাত্র সেগুলোই যেগুলোতে রাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য খুব বড় কোন হুমকি নেই।”

বিস্তারিত না বললেও এটি দ্বারা মোটামুটি প্রমাণ হয়ে যায় যে এ কথার মাধ্যমে হুয়াওয়ে তাদের ফোনের জন্য কোয়ালকমের তৈরী চিপসেট কিংবা গুগলের এন্ড্রয়েড ব্যবহারে কোন সমস্যায় পড়বে না।

তিনি আরও জানান যে আমেরিকান কোম্পানিগুলোর নিজেদের চলার জন্যেই তিনি হুয়াওয়ের কাছে যন্ত্রপাতি বিক্রির অনুমতি দিচ্ছেন। শোনা গিয়েছে ইন্টেল এবং জিলিংস এর মতো কোম্পানিগুলো হুয়াওয়ের প্রতি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার জন্য সরকারের কাছে আর্জি জানিয়েছিল।

অবশ্য এটাই স্বাভাবিক। কারণ গত বছর হুয়াওয়ে ইন্টেল, কোয়ালকম ও মাইক্রন এর কাছ থেকে চিপ কেনা বাবদ প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে। তাই কোন প্রতিষ্ঠানই ছাইবে না হুয়াওয়ের মতো এত বড় পার্টনার হাতছাড়া হয়ে যাক।

অবশ্য হুয়াওয়ের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ব্যাপারে ট্রাম্প এর মৌখিক সম্মতি আসলেও হুয়াওয়ে কাগজে কলমে এখনো কালো তালিকাভুক্ত ই আছে। মানে হুয়াওয়ের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ব্যাপারে এখনো কোন দাপ্তরিক সিদ্ধান্ত হয় নি। তবে প্রেসিডেন্ট নিজেই যখন এ ঘোষণা দিয়েছেন তবে আশা করা যায় এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়ে খুব শীঘ্রই বিজ্ঞপ্তি প্রচার হবে।

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

আমাদের প্রশ্ন করুন!