রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের জন্য নিতে হবে লাইসেন্স

দেশে বর্তমানে রাইড শেয়ারিং সার্ভিসগুলোর জয়জয়কার। সাধারণ মানুষদের যেমন উপকার হচ্ছে তেমনি বেকারদের কর্মসংস্থানও হয়েছে। উবার এর মতো গ্লোবাল কোম্পানির আদলে বাংলাদেশে পাঠাও কিংবা সহজ এর মতো বেশ কিছু স্টার্টআপ ও গড়ে উঠেছে। এতদিন ধরে রাইড শেয়ারিং এ সরকারের কোন নীতিমালা না থাকলেও এবার রাইড শেয়ারিং এর নীতিমালা করছে সরকার। এমনকি রাইড শেয়ারিং সেবা দেয়ার জন্য কোম্পানিকে নিতে হবে বিআরটিএ’র লাইসেন্স।

গত তিন বছর আগে রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের সূচনা হয় বাংলাদেশে। তিন বছর পর এবারই সরকার কোম্পানিগুলোকে লাইসেন্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। বিআরটিএ জানিয়েছে আগামী দুই-একদিনের মাঝেই লাইসেন্স দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলোকে সরকারের কাছ থেকে লাইসেন্স করতে হবে। অতঃপর তাদের নিজেদের নেটওয়ার্কে থাকা রাইডারদের বিশদ বিবরণ জমা দিয়ে তাদের রেজিস্ট্রেশন ও কোম্পানিগুলোই করবে। এক্ষেত্রে রাইডারদেকে নিজেদের রেজিস্ট্রেশনের ঝামেলায় যেতে হচ্ছে না।

নতুন এই লাইসেন্সিং প্রক্রিয়ার জন্য রাইড শেয়ারিং নীতিমালাতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগের নীতিমালা অনুযায়ী ১৬ টি কোম্পানি লাইসেন্সের জন্য আবেদন করলেও কেউ ই লাইসেন্স পায় নি। কারণ তারা নীতিমালার শর্ত পূরণ করতে পারে নি। তবে এবারে নীতিমালা কিছুটা শিথিল করে কোম্পানিবান্ধব করা হয়েছে।

আশা করা যাচ্ছে এই লাইসেন্সিং প্রক্রিয়ার ফলে রাইডারের সব তথ্য সরকারের কাছে থাকাতে রাইড শেয়ারিং বিষয়ক অপরাধ দমন করা আরো সহজ হবে। সেই সাথে সেবার মানও উন্নত হবে বলে আশা করা যায়।

 

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

আমাদের প্রশ্ন করুন!