ফিনল্যান্ডে ক্যামেরা রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টার খুললো শাওমি

এশিয়ার মোবাইল বাজারে শাওমির একচ্ছত্র আধিপত্য থাকলেও ইউরোপ কিংবা আমেরিকার মাটিতে অনেক দেশে শাওমির নাম ও জানে না অনেকে। আর এসব কারণেই এশিয়ার বাজার জয় করে শাওমি এবার ইউরোপের বাজার দখল করতে মন দিয়েছে। যদিও আমেরিকার বাজার নিয়ে শাওমি আপাতত মাথা ঘামাচ্ছে না। ইতিমধ্যে রাশিয়া, স্পেন সহ ইউরোপের অনেক দেশে শাওমি বেশ ভালো পরিচিতি পেয়েছে।

ইউরোপের বাজারে তাদের অবস্থান আরো পাকা করতেই ফিনল্যান্ড এ তারা নিজেদের একটি রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টার খুলেছে শাওমি। এখানে মূলত স্মার্টফোনের ক্যামেরার নতুন নতুন প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা করা হবে। ফিনল্যান্ড প্রযুক্তি বিশ্বের জন্য বেশ পরিচিত এক নাম। একসময়কার স্মার্টফোন জায়ান্ট নকিয়াও এই ফিনল্যান্ড এরই। মজার ব্যাপার হলো তাদের আরএন্ডডি সেন্টারটি টেম্পেয়ার শহরে অবস্থিত যেখানে নকিয়ার ক্যামেরা আরএন্ডডি সেন্টারও ছিল। নকিয়া ৮০৮ পিউরভিউ, নকিয়া ১০২০ এর মতো অসাধারণ ক্যামেরা ফোনগুলো এখানকারই গবেষণার ফল।

যদিও মাইক্রোসফট এর কাছে বিক্রি হয়ে যাওয়ার পর নকিয়ার সেই ক্যামেরা রিসার্চ সেন্টার আর নেই। তবে কিছুদিন আগে নকিয়ার সেই বিল্ডিং এই নকিয়ার ক্যামেরা সেক্টরের পুরোনো কর্মীদের নিয়ে নিজেদের ক্যামেরা রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টার বানিয়েছে আরেক চাইনিজ জায়ান্ট হুয়াওয়ে। এবার শাওমিই ঐ পথেই হাঁটলো।

পারফরমেন্স এর দিক থেকে কম দামে শাওমি সেরাটা দিলেও তাদের ক্যামেরা আহামরি কিছু ছিল না কখনোই। আর এসব কারণেই ক্যামেরা স্মার্টফোনের ক্যামেরা টেকনোলজির পুণ্যভূমি নামে খ্যাত ফিনল্যান্ডকেই তারা বেছে নিয়েছে নতুন আরএন্ডডি সেন্টারের জন্য। হয়তো ফিনল্যান্ডের মেধাবী কর্মীদেরকে নিয়ে হুয়াওয়ের মতো শাওমিরও ক্যামেরা ভাগ্য ফিরতে যাচ্ছে অচিরেই।

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

আমাদের প্রশ্ন করুন!