বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ১ আগস্ট এর পর কেনা সব অবৈধ হ্যান্ডসেট

আপনারা হয়তো অনেকেই শুনে আসছিলেন যে বাংলাদেশে অবৈধভাবে আমদানিকৃত সকল হ্যান্ডসেট বিটিআরসি বন্ধ করে দিতে যাচ্ছে। এর কারণ হচ্ছে অবৈধভাবে আমদানিকৃত হ্যান্ডসেট এর কারণে সরকার বিপুল পরিমাণে রাজস্ব হারাচ্ছে এবং একইসাথে গ্রাহকেরাও নিম্নমানের বা ক্লোন হ্যান্ডসেট না বুঝে কিনে প্রতারিত হচ্ছে। অবশেষে বিটিআরসি তাদের এই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে।

বিটিআরসির অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ও ভেরিফাইড পেইজে প্রকাশিত নোটিশ অনুযায়ী ২০১৯ সালের ১ আগস্ট এর পর কেনা সকল অবৈধ হ্যান্ডসেট বিটিআরসি বন্ধ করে দিবে। অবৈধ হ্যান্ডসেট বলতে যেসব হ্যান্ডসেট সরকারের ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে দেশে আনা এবং ডুপ্লিকেট আইএমইআই যুক্ত নকল বা ক্লোন ফোন।

ফোন বন্ধ করা বলতে মূলত সেসব ফোনে কোন সিম চলবে না। তবে আপনি ওয়াইফাই ব্যবহার সহ অন্যান্য কাজ করতে পারবেন।

তবে ১ আগস্ট এর আগে যে যে পন্থায়ই ফোন কিনে থাকেন না কেন সেটা আপাতত বিটিআরসি বন্ধ করবে না। তাই আপাতত কেউ অবৈধভাবে আমাদানীকৃত ফোন ব্যবহার করে থাকলে সেটি বন্ধ করার আওতায় পড়ছে না।

তবে ১ আগস্ট এর পর অবৈধভাবে কেনা ফোনগুলো কবে নাগাদ বন্ধ করা হবে সে ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু জানায় নি তারা।

তবে তারা এটা বলেছে যে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্ট্রার বা এনইআইআর ডেটাবেজ স্থাপনের কাজ করছে তারা। এ ডেটাবেজ স্থাপন শেষ হলেই ফোন বন্ধ করার কার্যক্রম শুরু হবে।

১ আগস্ট ২০১৯ এর আগে কেনা অবৈধ ফোনগুলো আপাতত বন্ধ না হলেও সেগুলো পর্যায়ক্রমে বিটিআরসির কাছ থেকে নিবন্ধন করে নিতে হবে। সেই সাথে কেউ বিদেশে ভ্রমণে গিয়ে ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য ফোন কিনলে বা কারো কাছ থেকে ফোন উপহার পেলে সেটা উপযুক্ত দলিল পেশ করে বিটিআরসির কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশন করে নেয়ার ব্যবস্থা থাকবে যেন ফোন বন্ধ না হয়।

নিচে বিটিআরসির প্রকাশিত নোটিশটি দেয়া হলোঃ

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.