কোয়াড ক্যামেরা নিয়ে বাজারে এলো রিয়েলমি ৫ এবং রিয়েলমি ৫ প্রো

আমাদের উপমহাদেশের বাজারে এতদিন যাবত বাজেট স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে শাওমি একচেটিয়া রাজত্ব করলেও এই মুকুট ছিনিয়ে নিতে আজকাল অপো থেকে শুরু করে স্যামসাং এর মতো ব্র্যান্ডও কোমর বেঁধে লেগেছে। এমনকি গত বছর থেকে শুধু এ উপমহাদেশের এন্ট্রি ও মিডরেঞ্জ বাজার ধরার জন্য অপো তাদের রিয়েলমি নামক সাব-ব্র্যান্ডও চালু করে। আর রিয়েলমি এক্ষেত্রে যথেষ্ট সফল। কিছুদিন আগে মুক্তি পাওয়া রিয়েলমি ৩ প্রো এবং রিয়েলমি এক্স এটারই প্রমাণ।

তবে বাজারে রিয়েলমি ঝড়ের গতবারের ধাক্কা কাটতে না কাটতেই বাজেটের মাঝে আরো দুটি মিডরেঞ্জ ফোন নিয়ে হাজির হলো তারা। আজকেই ভারতের বাজারে তারা লঞ্চ করেছে তাদের নতুন দুই হ্যান্ডসেট রিয়েলমি ৫ প্রো এবং রিয়েলমি ৫। এগুলো মূলত তাদের রিয়েলমি ৩ প্রো এর উত্তরসূরি। অনেকের মনেই প্রশ্ন আসতে পারে ৩ প্রো এর পর ৪ প্রো না এসে সরাসরি ৫ প্রো ই বা কেন? রিয়েলমি এর ব্যাখ্যা না দিলেও অনেক চাইনিজ কোম্পানিকেই ৪ সংখ্যাটি বাদ দিয়ে যেতে দেখা যায়। অনেকে বলে থাকেন চীনে ৪ সংখ্যাটিকে অশুভ ধরা হয় বলেই অনেক কোম্পানি এ কাজটি করে।

সে যাই হোক, নতুন দুই ফোনে তারা আগের মতোই পলিকার্বনেট বা প্লাস্টিক ব্যবহার করেছে। অনেক গ্রাহকেরাই হয়তো এবারের ফোনগুলোতে গ্লাস আশা করেছিলেন। তবে প্লাস্টিক বডির কিছু সুবিধাও রয়েছে। যেমন, ওজনে হালকা এবং পড়ে গিয়ে ভাঙ্গার সম্ভাবনা কম। তবে এবার ব্যাক প্যানেলের ডিজাইনের ক্ষেত্রে তারা ক্রিস্টাল প্যাটার্ন ব্যবহার করেছে যেমনটি তাদের রিয়েলমি সি২ তে দেখা গিয়েছে।

ফোনদুটির মাঝে রিয়েলমি ৫ এর কনফিগারেশনে কিছুটা কাটছাঁট করে মূল্য কমানো হয়েছে। এটি মূলত রিয়েলমি ৩ এর উত্তরসূরি হলেও রিয়েলমি ৩ তে ব্যবহৃত মিডিয়াটেক চিপসেট বাদ দিয়ে এতে স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট দেয়া হয়েছে। রিয়েলমি ৫ প্রো সবদিক থেকে এগিয়ে থাকলেও ব্যাটারি ক্যাপাসিটি কিন্তু আবার রিয়েলমি ৫ এ বেশি। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি নিয়ে এটিই সবচেয়ে বড় ব্যাটারিওয়ালা রিয়েলমি ফোন।

দুটো ফোনের পেছনেই চারটি করে ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। তবে ক্যামেরার সেন্সরগত পার্থক্য আছে দুটি ফোনে। রিয়েলমি ৫ প্রো তে রিয়েলমি এক্স এর মতো ৪৮ মেগাপিক্সেলের প্রাইমারি সেন্সর ব্যবহার করলেও রিয়েলমি ৫ এ ১২ মেগাপিক্সেলের প্রাইমারি সেন্সর ব্যবহৃত হয়েছে। তাছাড়া এগুলোর আগে মুক্তি পাওয়া রিয়েলমি এক্স এ ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও পপ আপ সেলফি ক্যামেরা ব্যবহার করা হলেও এই ফোনগুলোতে গতানুগতিক নচযুক্ত সেলফি ক্যামেরা এবং রিয়ার মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে। অবশ্য বাজেটের মাঝে রাখার জন্যই এ জিনিসগুলো হয়তো বাদ দেয়া হয়েছে।

আপাতত ফোনগুলো ভারতীয় অনলাইন রিটেইলার ফ্লিপকার্টে পাওয়া যাবে। সেখান থেকে আগস্টের ২৭ তারিখ থেকে রিয়েলমি ৫ এবং সেপ্টেম্বরের ৪ তারিখ থেকে রিয়েলমি ৫ প্রো কেনা যাবে। রিয়েলমি ৫ এর দাম শুরু ১০,০০০ এবং রিয়েলমি ৫ প্রো এর দাম শুরু ১৪,০০০ রুপি থেকে।

রিয়েলমি ৫ প্রো এর স্পেসিফিকেশন

ডিসপ্লেঃ ৬.৩ ইঞ্চি, ফুল এইচডি প্লাস, ১৯.৫ঃ৯ রেশিওর আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে।

চিপসেটঃ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭১২

র‍্যামঃ  ৪/৬/৮ জিবি

স্টোরেজঃ ৬৪/১২৮ জিবি

ক্যামেরাঃ কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা, এলইডি ফ্ল্যাশ

  • ৪৮ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স ৫৮৬ প্রাইমারি সেন্সর
  • ৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড লেন্স
  • ২ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর
  • ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স

১৬ মেগাপিক্সেল ওয়াটারড্রপ নচ সেলফি ক্যামেরা

অন্যান্যঃ  ইউএসবি টাইপ সি, রিয়ার মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট, স্প্ল্যাশ প্রটেকশন ইত্যাদি

ব্যাটারিঃ ৪০৩৫ মিলিএম্প, ২০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং

ওএসঃ এন্ড্রয়েড ৯.০ পাই ভিত্তিক কালারওএস ৬

রিয়েলমি ৫ এর স্পেসিফিকেশন

ডিসপ্লেঃ ৬.৫ ইঞ্চি, এইচডি প্লাস, ১৯.৫ঃ৯ রেশিওর আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে।

চিপসেটঃ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৫৫

র‍্যামঃ  ৩/৪ জিবি

স্টোরেজঃ ৩২/৬৪/১২৮ জিবি

ক্যামেরাঃ কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা, এলইডি ফ্ল্যাশ

  • ১২ মেগাপিক্সেল  প্রাইমারি সেন্সর
  • ৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড লেন্স
  • ২ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর
  • ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স

১৩ মেগাপিক্সেল ওয়াটারড্রপ নচ সেলফি ক্যামেরা

অন্যান্যঃ  ইউএসবি টাইপ সি, রিয়ার মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট, স্প্ল্যাশ প্রটেকশন ইত্যাদি

ব্যাটারিঃ ৫০০০ মিলিএম্প

ওএসঃ এন্ড্রয়েড ৯.০ পাই ভিত্তিক কালারওএস ৬

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.