শাওমি আনলো ভবিষ্যতের ফোন মি মিক্স আলফা

শাওমির মি মিক্স সিরিজটি মূলত তাদের ফিউচারিস্টিক ডিজাইন এর জন্য খ্যাত। তারা যখন প্রথমে তাদের অরিজিনাল মি মিক্স লঞ্চ করেছিল তখনকার হিসেবে সেটির ডিজাইনও অনেকটা ফিউচারিস্টিক ছিল। কারণ অল স্ক্রিন ডিসপ্লে ডিজাইন তখন অনেকের কাছেই কল্পনাতীত ছিল। তবে শাওমি সম্প্রতি তাদের ইনোভেশন লাইনআপে এক নতুন ডিভাইস যুক্ত করলো। এটি হলো মি মিক্স আলফা। মূলত এটি একটি কনসেপ্ট ফোন। তবে খুব শীঘ্রই এটি লিমিটেড এডিশন হিসেবে বাজারে আসবে সাধারণ গ্রাহকদের জন্য।

এটির অভুতপূর্ব ডিজাইনের কারণে ইতিমধ্যে ফোনটি নিয়ে ব্যাপক হাইপ সৃষ্টি হয়েছে। এখনকার সময়ের বেজেলবিহীন ফোনগুলো ও টেনেটুনে ৯৫ ভাগ স্ক্রিন টু বডি রেশিও অর্জন করতে পারে না। যারা জানেন না তাদের জন্য, স্ক্রিন টু বডি রেশিও হলো কোন স্মার্টফোনের সামনের দিকের সার্ফেস এরিয়ার কতভাগ স্ক্রিন দখল্করছে সেটার অনুপাত। তার মানে যে স্মার্টফোনের স্ক্রিন টু বডি রেশিও যত বেশি সেটি আপনাকে তত বেশি ফুল ভিউ এক্সপেরিয়েন্স দিবে।

অবাক করার বিষয় হলো নতুন ঘোষিত এই মি মিক্স আলফার ডিসপ্লেটিকে বাঁকিয়ে পেছন দিকে এমনভাবে গুড়িয়ে আনা হয়েছে যার ফলে এর স্ক্রিন টু বডি রেশিও দাঁড়িয়েছে ১৮০.৬ ভাগে! এটা সত্যিই অবিশ্বাস্য। শাওমি এর নাম দিয়েছে ৪ডি সারাউন্ড কার্ভড ডিসপ্লে।

যেহেতু ফোনের পেছনের দিকের অল্প একটু জায়গা বাদে এর পুরোটাই ডিসপ্লে তাই এর যাবতীয় সেন্সর ও স্পিকারগুলোকে তারা ডিসপ্লের নিচে নিয়ে গিয়েছে। এর ডিসপ্লেটিই কম্পনের মাধ্যমে অডিও আউটপুট দেয়। যেহেতু এর পিছনের দিকটিও ডিসপ্লে দিয়ে আবৃত তাই অনেকে ভাবতে পারেন এতে অনাকাঙ্ক্ষিত টাচ লেগে বিভিন্ন ফাংশন চালু হয়ে যেতে পারে। তবে ভয়ের কিছু নেই। শাওমি বলছে এতে তারা অনাকাঙ্ক্ষিত টাচ রোধের জন্য আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করেছে।

এতে ১০৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে যা স্মার্টফোন ইতিহাসে সর্বোচ্চ। তাছাড়া ৫জি প্রযুক্তি সহ বাকি সব স্পেসিফিকেশনই সর্বোচ্চ মানের। এতকিছু নিয়ে ফোনটি যে গতানুগতিক প্রাইস ট্যাগ নিয়ে আসবে না সেটাই তো স্বাভাবিক, তাই না? শাওমি এর বাজারমূল্য রেখেছে ২০,০০০ ইউয়ান যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় আড়াই লাখের মতো। অবশ্য শাওমি বলেছে লিমিটেড এডিশন হওয়ার কারণে এর প্রাইস একটু বেশি।

অন্যদিকে এটি নতুন ধরনের ডিজাইন নিয়ে আসায় এর ম্যানুফ্যাকচারিং সাকসেস রেটও কম। প্রায় প্রতি দশটা ফোন বানানোর পর এদের মাঝে একটা বিক্রি উপযোগী হয়। তবে শাওমি এই ফোন থেকে আপাতত এক পয়সাও লাভ করবে না বলে জানিয়েছে।

মি মিক্স আলফা এর স্পেসিফিকেশন

ডিসপ্লেঃ ৭.৯২ ইঞ্চি, ২০৮৮*২২৫০পি, এমোলেড ডিসপ্লে, ১৮০.৬% স্ক্রিন টু বডি রেশিও

চিপসেটঃ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫ প্লাস

র‍্যামঃ ১২ জিবি

স্টোরেজঃ ৫১২ জিবি (ইউএফএস ৩.১)

ক্যামেরাঃ ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ

  • ১০৮ মেগাপিক্সেল স্যামসাং আইসোসেল ব্রাইট এইচএমএক্স ১.৩৩ ইঞ্চি মেইন সেন্সর, এফ/১.৬
  • ২০ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড লেন্স
  • ১২ মেগাপিক্সেল টেলিফটো লেন্স

অন্যান্যঃ ডুয়াল সিম,ব্লুটুথ ৫.০, টাইপ সি, ইনডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার, এনএফসি, ৫জি,

ব্যাটারিঃ ৪০৫০ মিলিএম্প, ৪০ ওয়াট ফাস্ট চার্জ

ওএসঃ এন্ড্রয়েড ১০ ভিত্তিক মিইউআই ১১

[★★] আপনিও একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ! এখানে ক্লিক করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন।

ফেসবুকে যুক্ত হোন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য পেতে ইমেইলে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.